আজ বৃহস্পতিবার 6:37 am09 July 2020    ২৪ আষাঢ় ১৪২৭    18 ذو القعدة 1441
For bangla
Total Bangla Logo

হিলারি জিতলে মানবে না অর্ধেক রিপাবলিকান, একই অবস্থানে ট্রাম্পও

সাদেকা হাসান, জয়েন্ট এডিটর

আলজাজিরাবাংলা.কম

প্রকাশিত : ১০:২২ পিএম, ২২ অক্টোবর ২০১৬ শনিবার | আপডেট: ০১:১৯ পিএম, ২৩ অক্টোবর ২০১৬ রবিবার

হিলারি জিতলে মানবে না অর্ধেক রিপাবলিকান, একই অবস্থানে ট্রাম্পও

হিলারি জিতলে মানবে না অর্ধেক রিপাবলিকান, একই অবস্থানে ট্রাম্পও

আমেরিকার আসন্ন প্রেসিডেন্ট ইলেকশনে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন জয়ী হলে অর্ধেক রিপাবলিকান সমর্থকই ফল বর্জন করবেন। শুক্রবার (২১ অক্টোবর ২০১৬) প্রকাশিত রয়টার্স/ইপসোস-এর এক জরিপে এই তথ্য উঠে আসে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর ২০১৬) প্রকাশিত দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস লিখেছে, আগে থেকেই আমেরিকার আসন্ন প্রেসিডেন্ট ইলেকশনে কারচুপির আশঙ্কা করে আসছিলেন রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। সর্বশেষ প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেটেও তিনি পরাজিত হলে ফল প্রত্যাখ্যানের আভাস দিয়েছেন। এই বিষয়টিকেই পত্রিকাটি শিরোনাম করেছে।

রয়টার্স জরিপের তথ্য অনুসারে, ৭০ শতাংশ রিপাবলিকানই মনে করেন, হিলারি কেবল কারচুপির মাধ্যমেই জয়ী হতে পারেন। ৫০ শতাংশ রিপাবলিকান সদস্য হিলারির জয়কে মেনে নেবেন না।

ট্রাম্প জয়ী হলেও ৭০ শতাংশ ডেমোক্র্যাট সমর্থক ইলেকশনের ফলাফল মেনে নেবেন। এর আগে হিলারি নিজেও বলেছেন, ইলেকশনের ফলাফল যা-ই আসুক না কেন, তিনি তা মেনে নেবেন।


ট্রাম্প আগে থেকেই অভিযোগ করে আসছেন, ‘এবারের ইলেকশনে ১০ বছর আগে মারা যাওয়া ব্যক্তিও ভোট দেবেন।’ তিনি আরও অভিযোগ করেন, ‘এখানে এমন সব মানুষ ভোট দিচ্ছেন, যারা এমনকি আমাদের দেশের নাগরিকও নন।’

রিপাবলিকান শিবির থেকেও ট্রাম্পের বক্তব্যের সমালোচনা আসার পর ১৭ অক্টোবর এক টুইটার বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘ইলেকশনের দিন এবং এর আগে অবশ্যই বড় মাপের জালিয়াতি হচ্ছে। রিপাবলিকান নেতারা তা এড়িয়ে যাচ্ছেন কেন? নির্বুদ্ধিতা!’  

মিডিয়া এবং পলিটিক্যাল এস্টাবলিশমেন্ট হিলারিকে ইলেকশনে জয়ী করার চক্রান্ত করছে, রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের এমন মন্তব্যের পর চালানো জরিপে এই তথ্য বেরিয়ে আসে।

জরিপে দেখা যায়, ৮০ শতাংশ রিপাবলিকান চূড়ান্ত ভোট গণনা সম্পর্কে উদ্বিগ্ন। তারা সাধারণভাবে নিজেদের ভোট দেওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত হলেও মাত্র ৬০ শতাংশই মনে করেন, তাদের ভোট সঠিকভাবে গুনা হবে।

ডেমোক্র্যাটদের ক্ষেত্রে ৬০ শতাংশ সমর্থক ভোট গণনা সম্পর্কে উদ্বিগ্ন। তারা সাধারণভাবে নিজেদের ভোট দেওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত। ৮০ শতাংশ মনে করেন, তাদের ভোট সঠিকভাবে গুনা হবে।  

৭০ শতাংশ রিপাবলিকান ভোট কেনা-বেচা এবং ভোটিং মেশিন সম্পর্কে উদ্বিগ্ন। ৮০ শতাংশই মনে করেন, নাগরিক নন এমন ব্যক্তিদের ভোটার তালিকায় যুক্ত করা হয়েছে এবং সেখানে অবৈধভাবে ভোট দেওয়া হবে।

জরিপে ৬০ শতাংশ অংশগ্রহণকারী (উভয় পার্টির) জানিয়েছেন, তারা পুরো ভোটিং ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে উদ্বিগ্ন।

দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস : পরাজিত হলে ফল প্রত্যাখ্যানের আভাস ট্রাম্পের

আগে থেকেই আমেরিকার আসন্ন প্রেসিডেন্ট ইলেকশনে কারচুপির আশঙ্কা করে আসছিলেন রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। সর্বশেষ প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেটেও তিনি পরাজিত হলে ফল প্রত্যাখ্যানের আভাস দিয়েছেন। এ বিষয়টিই বৃহস্পতিবার শিরোনাম করেছে দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস।

নির্বাচনি বিতর্কে ট্রাম্প জানিয়েছেন, তিনি ইলেকশনের ফলাফল যথাযথ হয় কিনা, তা খতিয়ে দেখে সিদ্ধান্ত নেবেন। এ প্রসঙ্গে তিনি সরাসরি ইলেকশনের ফলাফল গ্রহণ বা বর্জনের কথা উল্লেখ না করে বলেন, ‘আমি এখন আপনাকে বলতে পারি, আমি আপনাদের উত্তেজনার মধ্যেই রাখছি।’

ট্রাম্পের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি জানান, ট্রাম্পের এই অবস্থান জেনে তিনি ‘হতভম্ব’ হয়ে পড়েছেন। তিনি বলেন, ‘তিনি আমাদের গণতন্ত্রকে কলঙ্কিত করছেন, অবমাননা করছেন। আমাদের দুটি বৃহৎ পার্টির কোনও প্রতিদ্বন্দ্বীর এমন অবস্থান জেনে আমি হতভম্ব হয়ে গেছি।’

বিতর্কে নারী ও এলজিবিটি সম্প্রদায়ের অধিকারের পক্ষে নিজের অবস্থানের কথা জানান হিলারি ক্লিনটন। নাগরিকদের অস্ত্র রাখার অধিকারের পক্ষে নিজের অঙ্গীকারের কথা জানান ডোনাল্ড ট্রাম্প। এছাড়া তিনি নির্বাচিত হলে আমেরিকায় গর্ভপাতকে বৈধ করার যে রুলিং রয়েছে, সেটি পরিবর্তনের আশা ব্যক্ত করেন।

বিতর্কে দুই প্রার্থীর পাল্টাপাল্টি আক্রমণের মাঝেই হিলারি বলেন, ডোনাল্ড ট্রাম্পকে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হিসেবে দেখতে চান রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। কারণ, ট্রাম্প তার একজন ‘পুতুল মাত্র’। বিপরীতে হিলারি ক্লিনটনকেও ‘পুতুল’ বলে মন্তব্য করেন ট্রাম্প। তিনি হিলারিকে একজন ‘নোংরা মহিলা’ বলেও মন্তব্য করেন।

রাজনীতি-এর সর্বশেষ খবর