আজ বুধবার 1:02 am20 September 2017    ৪ আশ্বিন ১৪২৪    27 ذو الحجة 1438
For bangla
Beta Total Bangla Logo

রিবান নাসিআহ ও সুদি ব্যাংক

মুফতি মুহাম্মাদ শোয়াইব

টোটালবাংলা২৪.কম

প্রকাশিত : ০৬:৪০ পিএম, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ শুক্রবার

মুফতি মুহাম্মাদ শোয়াইব, সহকারী সম্পাদক, টোটালবাংলা২৪.কম

মুফতি মুহাম্মাদ শোয়াইব, সহকারী সম্পাদক, টোটালবাংলা২৪.কম

‘রিবা’ পরিভাষাটি আরবি শব্দমূল ‘রাবউন’ থেকে এসেছে। এর বাংলা অর্থ, বেশি হওয়া, বাড়া, অতিরিক্ত হওয়া, সম্প্রসারিত হওয়া, মূল থেকে বেড়ে যাওয়া ইত্যাদি। আরবির রিবাকে উরদু ভাষার ‘সুদ’ শব্দ দিয়ে অনুবাদ করলেও এর পূর্ণ অর্থ প্রকাশ পায় না। উরদু ‘সুদ’, আরবি ‘রিবা’র ব্যাপক অর্থের একটি অংশমাত্র। ইসলামি শরিয়তে, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরিশোধের শর্তে কোনো নির্দিষ্ট পরিমাণ পণ্য বা অর্থের বিপরীতে পূর্বনির্ধারিত হারে যে অধিক পরিমাণ পণ্য বা অর্থ আদায় করা হয়, তাই ‘রিবা’ বা সুদ। 


রিবা প্রধানত দুই ধরনের। ১. রিবান নাসিআহ; একে রিবাল করজ ও রিবাল কোরআনও বলা হয়। ২. রিবাল ফদল; একে রিবাল বাই ও রিবাল হাদিসও বলা হয়। 

রিবান নাসিআহ : আরবি ‘নাসিআহ’ শব্দের অর্থ, মেয়াদ, সময় নেওয়া, বিলম্ব বা প্রতীক্ষা করা। ইমাম আবু বকর আল জাস্সাস তার বিখ্যাত তাফসির ‘আহকামুল কোরআনে’ রিবার সংজ্ঞা দিয়েছেন এভাবে, ‘রিবান নাসিআহ হচ্ছে ঋণের ওপর সময়ের অনুপাতে ধার্যকৃত অতিরিক্ত অংশ।’ জাহিলিয়াতের সময় সুদ ছিল, ‘কোনো নির্ধারিত সময়ের জন্য প্রদত্ত ঋণের আসলের ওপর ঋণগ্রহীতা কর্তৃক দেয় নির্ধারিত অতিরিক্ত।’ অর্থাৎ অতিরিক্ত প্রদানের শর্তে কাউকে মেয়াদি ঋণ দেওয়া। যেমন- কেউ কাউকে ১০০ টাকা ঋণ দেয় এই শর্তে, তাকে মেয়াদ শেষে ১১০ টাকা দিতে হবে। এখানে অতিরিক্ত ১০ টাকাকে রিবান নাসিআহ বলা হবে। (আহকামুল কোরআন ১/৫৫৭)।

প্রখ্যাত মুফাসসির জারির ইবনে আত-তাবারি মুজাহিদের সূত্রে জাহেলি যুগে প্রচলিত রিবা সম্পর্কে হাদিস উল্লেখ করেছেন, ‘জাহিলি যুগে কোনো ব্যক্তি ঋণদাতার কাছ থেকে ঋণ গ্রহণ করত। এরপর সে ঋণদাতাকে বলত, আমি এত এত পরিমাণ বেশি দেব, আমাকে সময় বাড়িয়ে দাও।’ ইমাম ফখরউদ্দিন আর রাজি জাহিলি যুগের রিবা সম্পর্কে বলেছেন, ‘জাহিলিয়াতের যুগে রিবান নাসিআহ ছিল সুপরিচিত ও স্বীকৃত। সে সময় তারা অর্থঋণ দিত এবং মাসিক ভিত্তিতে একটা অতিরিক্ত পরিমাণ আদায় করত। মূলধন তাদের ঠিকই থাকত। এরপর মেয়াদ শেষে ঋণদাতা ঋণগ্রহীতার কাছে আসল অঙ্ক ফেরত চাইত। ঋণগ্রহীতা আসল অঙ্ক ফেরত দিতে না পারলে ঋণদাতা আসলের পরিমাণ বাড়িয়ে দিত এবং মেয়াদ বাড়িয়ে দিত।’

 

হাদিসে রিবা বা সুদের সংজ্ঞায় আরও বলা হয়েছে, ‘যে ঋণ মুনাফা টেনে আনে, তা-ই রিবা বা সুদ।’

 

রিবাল ফদল : আরবি ‘ফদল’ শব্দের অর্থ, অতিরিক্ত। একই জাতীয় জিনিস লেনদেনে কমবেশি করে আদায় করার নাম রিবাল ফদল। অর্থাৎ একই জাতীয় দ্রব্য বা মুদ্রার লেনদেনকালে এক পক্ষ আরেক পক্ষের কাছ থেকে চুক্তি মোতাবেক শরিয়াসম্মত বিনিময় ব্যতীত যে অতিরিক্ত মাল গ্রহণ করে, তাকে রিবাল ফদল বলে। যেমন-এক কেজি উন্নতমানের খেজুরের সঙ্গে দেড় কেজি নিম্নমানের খেজুর বিনিময় করা। রিবাল ফদলকে মালের সুদও বলা হয়। হাদিস শরিফে বলা হয়েছে, ‘সোনার বিনিময়ে সোনা, রুপার বিনিময়ে রুপা, গমের বিনিময়ে গম, যবের বিনিময়ে যব, খেজুরের বিনিময়ে খেজুর এবং লবণের বিনিময়ে লবণ আদান-প্রদান করলে তা সমান সমান ও হাতে হাতে হতে হবে। অর্থাৎ নগদ হতে হবে। কমবেশি করলে বা বাকিতে করলে তা সুদি কারবার বলে গণ্য হবে। এতে দাতা-গ্রহীতা সমান অপরাধী বিবেচিত হবে।’ (বোখারি, মুসলিম)। 



রিবান নাসিআহর প্রচলিত কয়েকটি রূপ 


১. সুদি ব্যাংক : বাংলাদেশের সুদি ব্যাংকগুলোর অন্যতম প্রধান কার্যক্রম সাধারণত স্বল্প সুদে ঋণ নেওয়া ও বেশি সুদে ঋণ দেওয়া। সুদি ব্যাংকগুলো সুদের কার্যক্রমে তাদের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখে না। আরও নানা কার্যক্রম করে থাকে। তাই ওলামায়ে কেরামের সিদ্ধান্ত হলো, সুদি ব্যাংকের কারেন্ট একাউন্ট ছাড়া বাকি সব একাউন্ট সুদি একাউন্ট। চাই তা DPS হোক বা FDR হোক অথবা সাধারণ ফিক্সড ডিপোজিট হোক; সবই SND একাউন্ট। ইদানীং ঝঘউ কারেন্ট একাউন্ট নামে এক ধরনের একাউন্ট বের হয়েছে। তাতে সুদের মিশ্রণ দেওয়া হয়। এ ধরনের সুদি একাউন্ট খোলাই গোনাহ। কারণ, সুদের চুক্তিতে আবদ্ধ হওয়া গোনাহ। সুদ গ্রহণ করলে তো সুদ খাওয়ার গোনাহ হয়ই। তাছাড়া সুদি ব্যাংকগুলো বিভিন্ন নামে লোন দিয়ে থাকে। যেমন- কার লোন, হোম লোন, হাউস লোন, ইনভেস্টমেন্ট লোন, সিসি লোন, কৃষি লোন, স্টুডেন্ট লোন ইত্যাদি। এগুলো সবই রিবান নাসিআহ। কারণ, এ ধরনের লোনে ঋণ দিয়ে সুদ গ্রহণ করা হয়। 


২. প্রচলিত প্রাইজবন্ড : বর্তমান প্রচলিত প্রাইজবন্ডে রিবান নাসিআহ রয়েছে। যে টাকা দিয়ে প্রাইজবন্ড কেনা হচ্ছে, শরিয়তের দৃষ্টিতে তা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে ঋণ হিসেবে আছে। প্রাইজবন্ড ছাড়ার পর একটি নির্ধারিত সময় পার হওয়ার পর ড্র করার মাধ্যমে বিজয়ীদের যে পুরস্কার দেওয়া হয়, তা ঋণের বিনিময়ে দেওয়া হচ্ছে। তাই তা রিবান নাসিআহ বা সুদ। (ফাতওয়ায়ে উসমানি-৩/১৭৩-১৭৬)।


৩. জমি বন্ধক : বাংলাদেশের প্রায় সব এলাকায়ই জমি বন্ধকের নিয়মটি চালু আছে। জমির মালিক জমি প্রার্থীর কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা ঋণ হিসেবে গ্রহণ করে। বিনিময়ে টাকার মালিক বন্ধক জমিটি ভোগ করে এবং মেয়াদ শেষে পুরো টাকা ফেরত পায়। জমির মালিক তার জমি হস্তগত করে নেয়। এখানে জমির মালিক জমি বুঝে পায় এবং টাকার মালিক টাকা বুঝে পায়, মাঝখানে টাকার মালিক ঋণ দেওয়ার কারণে যে জমিটি ভোগ করল, সেটি নিঃসন্দেহে রিবান নাসিআহ’র অন্তর্ভুক্ত, যা হারাম। এ ধরনের বন্ধক বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন নামে প্রচলিত থাকলেও সবকটির হুকুম একই। ঋণদাতার জন্য বন্ধকি জমি ভোগ করা সম্পূর্ণ নাজায়েজ। 

 

ওই কারবার বৈধভাবে করতে চাইলে শুরু থেকেই বন্ধকি চুক্তি না করে তা ভাড়া বা লিজ চুক্তি করবে। যার বিবরণ হলো, জমির মালিক জমি ভাড়া দেবে। তার যত টাকা প্রয়োজন সে জন্য যত বছর ভাড়া দিতে হয়, একত্রে তত বছরের জন্য ভাড়া দেবে এবং অগ্রিম টাকা নিয়ে নেবে। যেমন- ধরুন, এক বিঘা জমির বার্ষিক ভাড়া ৫ হাজার টাকা। মালিকের ২০ হাজার টাকা প্রয়োজন। তাহলে সে ৪ বছরের জন্য জমি ভাড়া দেবে। এক্ষেত্রে অগ্রিম ২০ হাজার টাকা নিয়ে নেবে। এক্ষেত্রে জমির ভাড়া স্থানীয় ভাড়া থেকে সামান্য কমবেশিও হতে পারে। এরপর ভাড়ার মেয়াদ শেষ হলে অর্থদাতা জমি ফেরত দেবে। প্রদেয় টাকা ফেরত পাবে না। (মুসান্নাফ আবদুর রাজ্জাক ৮/২৪৪-২৪৫, শরহু মুখতাসারিত তাহাবি ৩/১৪৯, রদ্দুল মুহতার ৬/৪৮২, বাদায়েউস সানায়ে ৫/২১২, শরহুল মাজাল্লা, খালেদ আতাসি ৩/১৯৬-১৯৭, ইলাউস সুনান ১৮/৬৪, মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা, হাদিস : ২১০৭৮ ১৩/৬৪৮, আন্নুতাফ ফিল ফাতাওয়া ২৯৬, বাদায়েউস সানায়ে ৬/৫১৮)।

 

 

 

মুফতি মুহাম্মাদ শোয়াইব-এর আরও লেখা পড়ুন :

 

# প্রিয়নবি (সা.)-এর ইনতেকাল কোন দিন, তথ্য ও যুক্তিসহ জেনে নিন

 

# আপনি মুসলিম, পুরোপুরিই ইসলাম পালন করতে হবে