আজ বৃহস্পতিবার 6:39 am09 July 2020    ২৪ আষাঢ় ১৪২৭    18 ذو القعدة 1441
For bangla
Total Bangla Logo

মিডিয়ায় স্বাস্থ্য সংবাদ বাড়লে কৃষির মতোই সুফল মিলবে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা

আলজাজিরাবাংলা.কম

প্রকাশিত : ০৪:১৭ পিএম, ১৫ অক্টোবর ২০১৬ শনিবার | আপডেট: ০৬:২৫ পিএম, ২৭ জুন ২০১৯ বৃহস্পতিবার

মিডিয়ায় স্বাস্থ্য সংবাদ বাড়লে কৃষির মতোই সুফল মিলবে

মিডিয়ায় স্বাস্থ্য সংবাদ বাড়লে কৃষির মতোই সুফল মিলবে

মিডিয়ায় কৃষি বিষয়ক সংবাদের গুরুত্ব বাড়ার ফল পাওয়া গেছে। দেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। একইভাবে স্বাস্থ্য বিষয়ক সংবাদের গুরুত্ব বাড়ানো হলে স্বাস্থ্য খাতেরও অভাবনীয় উন্নতি হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী।

বিশ্ব এনেসথেসিয়া দিন উপলক্ষে আজ শনিবার (১৫ অক্টোবর) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) মিল্টন হলে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, দেশে ডাক্তারদের জনগণের আস্থা অর্জন করতে হবে। শুধু বাণিজ্যিক কারণে রোগীকে অতিমাত্রায় ওষুধ বা পরীক্ষা করতে দিলে রোগীর মধ্যে ভয়ের সৃষ্টি হয়। অনেক সময় হাসপাতাল ব্যবসায়ীরা আর্থিক লাভের আশায় আইসিইউতে রোগীকে ভর্তি করিয়ে রাখেন। সেখানেও অবহেলার শিকার হন রোগী। রোগীর প্রতি অবহেলা যতো কমবে, রোগীর মৃত্যু সংখ্যাও ততো কমবে। ডাক্তারদের সুনাম বাড়বে।

তিনি বলেন, মানসম্পন্ন ডাক্তার তৈরি করতে হবে মেডিকেল কলেজগুলোকে। বেসরকারি মেডিকেল কলেজে সারটিফিকেট বিক্রি করে ডাক্তার বানানো হলে, সাধারণ মানুষ কখনোই চিকিৎসা সেবা পাবে না।

বলেন, দেশের জনগণের স্বাস্থ্য খারাপ হলে এ খাতে খরচ বেড়ে যাবে। মাথাপিছু আয় বাড়লেও কোনো লাভ হবে না। কারণ, রোগীর চিকিৎসার কারণে খরচ বেড়ে যাবে।

এনেসথিওলজিস্ট বাড়াতে হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়তেই এনেসথেসিয়া কোর্সে আরও শিক্ষার্থী বাড়াতে হবে বলে মন্তব্য করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ডা. কামরুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, পেশাদার জনশক্তি বাড়াতে হবে। বিএসএমএমইউতে ১৬টি বিভাগের সারজারির জন্য রয়েছে মাত্র একটি এনেসথেসিয়া বিভাগ।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, দেশে বর্তমানে ১ হাজার ৫৭৫ জন এনেসথিওলজিস্ট রয়েছেন। এর মধ্যে ৬২৬ জন বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত। উপজেলা হাসপাতালগুলোতে এনেসথিওলজিস্টের অভাবে অস্ত্রোপচার সম্ভব হচ্ছে না।

বেতন বৃদ্ধি, চাকরির বয়স বৃদ্ধি করে এনেসথেসিয়ায় মেডিকেল শিক্ষার্থীদের আগ্রহ করার চিন্তা সরকারের রয়েছে বলেও জানান তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের এনেসথেসিয়া শিক্ষক অধ্যাপক ডা. খলিলুর রহমান বলেন, দেশে জেলা পর্যায়ে সব সারজারির জন্যই রয়েছে মাত্র একটি এনেসথিওলজিস্টের পদ। এ পদ সংখ্যা আরও বাড়াতে হবে।

বাংলাদেশ এনেসথিওলজিস্ট সোসাইটি`র সভাপতি ডা. মাকসুদুল আলমের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন- বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. মাহমুদুল হাসান, বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিলের সভাপতি ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লা প্রমুখ।