আজ বুধবার 12:55 am20 September 2017    ৪ আশ্বিন ১৪২৪    27 ذو الحجة 1438
For bangla
Beta Total Bangla Logo

পরিবারের সবাইকে নিয়ে ইসলাম কবুল করছেন বারাক ওবামা

তাকরিম হাসান, বিশেষ প্রতিনিধি

টোটালবাংলা২৪.কম

প্রকাশিত : ০১:১১ পিএম, ২৯ এপ্রিল ২০১৭ শনিবার

বারাক হোসাইন ওবামা, অামেরিকার সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট

বারাক হোসাইন ওবামা, অামেরিকার সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট

আমেরিকার সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট বারাক হোসাইন ওবামা নিজের পরিবারের সবাইকে নিয়ে ইসলাম কবুল করছেন। এ বছরের ডিসেম্বরে তিনি বাংলাদেশে এসে চট্টগ্রাম লালখান বাজার মাদরাসার পৃন্সিপাল ও গ্র্যান্ড মুফতি ইজহারুল ইসলাম চৌধুরীর হাতে ইসলাম কবুল করছেন বলে জানা গেছে। খবরের সত্যতা নিশ্চিত করতে টোটালবাংলা২৪ ডটকম-এর হোয়াইট হাউস প্রতিনিধি আবদুল্লাহ আবরার-এর সঙ্গে কথা বলার পর তিনিও জানান, ‘খবরটি মিথ্যা হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এর আগেও কয়েকবার তাঁর ইসলাম কবুলের বিষয়টি নিয়ে বহু গুঞ্জন শোনা গেছে। তাছাড়া মিস্টার ওবামা জন্মগতভাবেই মুসলিম। এতে কারও কোনো সন্দেহ নেই। প্রেসিডেন্ট থাকার সময় তিনি কয়েকবার প্রকাশ্যে নিজেকে মুসলিম ঘোষণা করতে চেয়েছিলেন। নানান বাধ্য-বাধকতার কারণে তাঁর পক্ষে তখন নিজেকে মুসলিম ঘোষণা করা এবং তাঁর পরিবারের অন্য সদস্যরাও যে মুসলিম হতে চান, সেটি প্রকাশ করতে পারেন নি।’

 

আরও পড়ুন : পানিরাক্ষস ইনডিয়ার পানিতে ডুবছে লাখো কৃষকের ফসল, জবাব দেওয়া হবে

 

আবদুল্লাহ আবরার বলেন, আমি বারাক ওবামার একজন ঘনিষ্ঠ বন্ধুর সঙ্গে কথা বলে জানতে চয়েছিলাম, আসলেই কি বারাক ওবামা পরিবারের সবাইকে নিয়ে মুসলিম হতে যাচ্ছেন? জবাবে তিনি বলেন, বারাক হোসানইন ওবামা জন্মগতভাবেই মুসলিম। তিনি কখনোই ইসলাম ত্যাগ করেননি। তাঁর স্ত্রী মুসলিম নয়। পরিবারের সবাইকে নিয়ে তিনি প্রেসিডেন্ট থাকা অবস্থায়ই নিজেদের মুসলিম হিসেবে প্রকাশ করতে চেয়েছিলেন। নানান কাণে সেটি সম্ভব হয়নি। খুব শিগগির তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে মুসলিম ঘোষণা করবেন। সঙ্গে আমি নিজেও মুসলিম হবো।

 

টোটালবাংলা২৪ ডটকম সম্পাদককে লালখান বাজার মাদরাসার পৃন্সিপাল ও গ্র্যান্ড মুফতি ইজহারুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, আমি স্বপ্নে দেখেছি, বারাক ওবামা পরিবারের সবাইকে নিয়ে আমার হাতে মুসলমান হচ্ছেন। ইনশাআল্লাহ, স্বপ্নে যা দেখেছি তা অচিরেই বাস্তব হবে।

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে জানা যায়, বারাক হুসেইন ওবামা, জুনিয়র (ইংরেজি ভাষায়: Barack Hussein Obama, Jr.; (জন্ম: ৪ আগস্ট, ১৯৬১) আমেরিকার ৪৪তম রাষ্ট্রপ্রধান। ২০১২ খৃস্টাব্দের নভেম্বরে তিনি দ্বিতীয়বারের মতো আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। অক্টোবর ৯, ২০০৯ তারিখে ওবামাকে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার প্রদান করা হয়। ২০ জানুয়ারি, ২০১৭ তারিখে তিনি প্রেসিডেন্ট পদ থেকে অবসরে যান।

বারাক ওবামা আমেরিকার ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সদস্য। এর আগে তিনি মার্কিন সিনেটে ইলিনয় অঙ্গরাজ্যের নির্বাচিত প্রতিনিধি অথবা সিনেটরের দায়িত্ব পালন করেন। ওবামা ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর অনুষ্ঠিত আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হন এবং ২০০৯ সালের ২০ জানুয়ারি শপথ গ্রহণ করেন।

 

আরও পড়ুন : শেখ হাসিনার সব দাবি অক্ষরে অক্ষরে মানতে হবে ইনডিয়াকে

 

বারাক ওবামা আমেরিকার হাওয়াই অঙ্গরাজ্যের রাজধানী হনলুলুতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা কেনিয়ার লুও জাতির বারাক হুসেইন ওবামা সিনিয়র ছিলেন একজন অর্থনীতিবিদ এবং তাঁর মা এন ডানহ্যাম ছিলেন আমেরিকান শ্বেতাঙ্গী (প্রধানত ইংরেজআইরিশ)। ওবামার বাবা হাওয়াই-মানোয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ে এন ডানহ্যামের সঙ্গে তাঁর পরিচয় ও বিয়ে হয়। ওবামার ২ বছর বয়সে তাঁর বাবা-মায়ের বিবাহ-বিচ্ছেদ ঘটে। ওবামার মা পরে ইন্দোনেশীয় লোলো সুতোরোকে (জাভানীয়: Lolo Soetoro) বিয়ে করেন। ওবামার শৈশবের অনেকটা সময় কেটেছে ইন্দোনেশিয়াতে। ১০ বছর বয়সে তিনি তাঁর হাওয়াইয়ে নানা-নানীর কাছে চলে আসেন। পরবর্তীতে ওবামা হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনে ডিগৃ লাভ করেন।

২০০৪ সালে ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যের বস্টন শহরে অনুষ্ঠিত ডেমোক্র্যাট দলের জাতীয় সম্মেলন তিনি মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন। এরপর, আমেরিকার প্রগতিশীল রাজনীতির ধারায় তাঁকে একজন উদীয়মান তারকা হিসেবে গণ্য করা হয়েছিল। সম্মেলনের পূর্ব পর্যন্ত ওবামা জাতীয় পরিসরে মোটামুটি অচেনাই ছিলেন। তাঁর অসামান্য বক্তৃতাটির ফলে তিনি মূহুর্তেই জাতির কাছে পরিচিতি লাভ করেন।

সেই বছরের নভেম্বর মাসে তিনি ইলিনয় অঙ্গরাজ্য থেকে আমেরিকার সিনেট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন এবং বিপুল ব্যবধানে রিপাবলিকান দলের প্রতিপক্ষ এলেন কীয়েজকে পরাজিত করেন।

বারাক ওবামা ২০০৮ সালের আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন লাভ করেন। তিনি ঐ বছরের ৪ নভেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে জয়ী হন এবং আমেরিকার ৪৪তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হন। তিনি ২০১২ সালের ৭ নভেম্বর ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী মিট রমনিকে হারিয়ে পুনরায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।

 

আমেরিকাভিত্তিক বিশ্ববিখ্যাত টাইম ম্যাগাজিন ২০১১ সালে ৩২ জনের নাম `পারসন অফ দ্য ইয়ার` হিসেবে মনোনীত করে। এ তালিকায় - স্টিভ জবস, আঙ্গেলা ম্যার্কেল, সিলভিও ব্যার্লুস্কোনি, লিওনেল মেসি প্রমূখ বিশ্বখ্যাত ব্যক্তিত্বদের পাশাপাশি তিনিও স্থান পেয়েছেন৷ ২০১২ সালেও তিনি দ্বিতীয়বারের মতো টাইম ম্যাগাজিনের পারসন অব দি ইয়ার মনোনীত হয়েছেন।