আজ সোমবার 12:38 pm06 July 2020    ২২ আষাঢ় ১৪২৭    15 ذو القعدة 1441
For bangla
Total Bangla Logo

ছাদেই তার স্বপ্নের বাগান

ডেস্ক রিপোর্ট

আলজাজিরাবাংলা.কম

প্রকাশিত : ০৯:৪৩ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬ মঙ্গলবার | আপডেট: ০২:০৭ পিএম, ১৬ অক্টোবর ২০১৬ রবিবার

ছাদেই তার স্বপ্নের বাগান

ছাদেই তার স্বপ্নের বাগান

শহুরে জীবনে সবুজের সজীব ছোঁয়ার মধ্যে বেঁচে থাকতে রাজশাহী মহানগরীর মহিষবাথান এলাকার শামীম আরা ছাদে বাগান শুরু করেছিলেন ২০১১ সালের শেষের দিকে। মাত্র কয়েক বছর পেরুতেই সেই শামীম আরাই হয়ে উঠেছেন ছাদে বাগান করার রোল মডেল। পেয়েছেন ছাদ বাগান করায় ২০১৬ সালে প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে দেশ সেরা পুরস্কার।

ফলজ, বনজ, ভেজষ বা ঔষধি, শোভাবর্ধনকারী, দেশীয় বিলুপ্তপ্রায় গাছ, বিরল জাতীয় গাছ, সবজি কী নেই তার বাগানে। ভালোবাসায় ছোঁয়ায় গড়ে তুলেছেন বাগানটি। আর গাছগুলো যেনো নিজের সন্তানের মতো। কোন গাছের কী প্রয়োজন তা ভালোভাবেই জানেন তিনি। নেন সেইভাবেই যত্ন। বাগানে বিকেল থেকেই শুরু হয় নানান পাখির আনাগোনা। সবুজ ঘেরা প্রকৃতিতে পাখিদের মিষ্টি নানান শব্দ যেনো মন ভরিয়ে দেয়।

শামীম আরার স্বামী সেহাবউদ্দীন একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা। শামীম আরার এসব কাজে প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতা করে থাকেন তিনি। তাদের ছাদের বাগানে ফলজ গাছের মধ্যে সংগ্রহে আছে, জিনিয়া পাম, থাইল্যান্ডের জাম, লটকন, শসা জামরুল, এলাচি লেবু, কলা, আম, পেঁপে, গৌড়মতি আম, সফেদা, মরিচ, কাগজি লেবু, মিষ্টি জলপাই, বাতাবি লেবু, মিষ্টি চেরি ফল, নাশপাতি, আতা, বিভিন্ন ধরনের পেয়ারা, কমলা, পাকিস্তানি মালটা, কামরাঙ্গা, কতবেল, ড্রাগন, মিষ্টি তেঁতুল, থাইড্রপ আম, তেঁতুল, কালো পাতার ব্লাক বক্স আম, কলা, থাই জাম, দেশি জাম, করমচা, বিদেশি বেল, বেদেনা, চেরি ফল, সফেদা, সাজনে গাছ, থাইল্যান্ডের বাতাবি লেবু, সুদানের আতা, আপেল, অভিসারিকা আম, সুইট লেমন, থাই কাঁঠাল, বাউকুল, অরুনা (আম)।

মসলা জাতীয় গাছের মধ্যে আছে অল স্পাইস, তেজপাতা, দারুচিনি, গোলাপজামন, ধনা পাতাসহ আরো অনেককিছু।

শোভাবর্ধনকারী গাছগুলোর মধ্যে আছে, নীল অপরাজিতাসহ বিভিন্ন রঙের অপরাজিতা, ফায়ার বল, বিভিন্ন ধরনের জবা, অ্যাডেনিয়াম, এলামুন্ডা, ৩০ থেকে ৩৫ প্রজাতির গোলাপ, লাইলী-মজনু, বিভিন্ন ধরনের পাতা বাহার, সাইকাস, অ্যারোমেটিক জুঁই, টগর, কামিনী, মধুমালতি, মাধবিলতা, বিভিন্ন ধরনের অর্কিড, ক্যাকটাস, বেগুনিয়াসহ প্রায় ৭০ থেকে ৮০ প্রজাতির ফুল। বর্তমানে তাদের বাগানের গাছগুলোতে মালটা, ড্রাগন, করমচা, পেয়ার, বেদেনাসহ বেশ কিছু ফল ধরে আছে। ফুটে আছে অনেক ফুল। শীতকালে এ পুরো ছাদই যেনো ফুলময় হয়ে উঠে।

শামীম আরা জানান, শৈশব থেকেই গাছের প্রতি তার চরম আগ্রহ ছিল। সে থেকে শখ। বিয়ের পর থেকেই বাড়ির ছাদে গাছ লাগাতে লাগান তিনি। নিজের প্রচেষ্টা আর স্বামীর অনুপ্রেরণা ও সহযোগিতায় বাড়ির ছাদে বাগানের সূচনা।

শুরুর দিকে তারা বাগানে সবজিও চাষও করতেন। পুঁই শাক, বিভিন্ন ধরনের সবুজ ও লাল শাক, মিষ্টি কুমড়া, শিম, টমেটো, ফুলকপি ও বাধাকপি, বেগুনও চাষ করা হতো ছাদে। বাড়ির সবজির চাহিদা ছাদের সবজি বাগান থেকেই পূরণ হয়ে যেতো। তবে, বর্তমান সময়ে ছাদে সবজি চাষ কমিয়ে দিয়েছেন তারা। অন্য গাছগুলোর অসুবিধে হওয়ার কারণে তারা এ উদ্যোগ নিয়েছেন।

তিনি আরো জানান, ইট-পাথরের নগরে সবুজের ছোঁয়া একেবারে নেই বললেই চলে। অনেক খুঁজে পেতেও বাড়ি কিংবা এলাকার আশেপাশে কোনো গাছ পাওয়া যায় না আজকাল। অথচ এই যান্ত্রিক শহরে সবুজ প্রকৃতি খুবই জরুরি। এ অনুভবটা তিনি মনে করতেন।

শামীম আরার স্বামী সেহাব উদ্দীন জানান, ছাদে বাগান করার ক্ষেত্রে মাটির পাওয়ার বিষয়টি বেশ সমস্যা দেখা যায়। পদ্মা নদীর পলি মাটি সংগ্রহ করা হয়। সেই মাটির সঙ্গে গোবরসার, মিশ্র সার যোগ করা হয়। এরপরে সেগুলোতে গাছ লাগানো হয়।

কৃষিবিদরা জানান, মানুষের বেঁচে থাকার জন্য অক্সিজেন প্রয়োজন। প্রতিটি মানুষ দিনে ২২ হাজার বার নিঃশ্বাস নেয়। আর এতে করে একদিনে মানুষের অক্সিজেন প্রয়োজন হয় ১৬ কেজি। যার যোগান দেয় সাতটি গাছ। তাই নিজেদের সুস্থ থাকার তাগিদেই অধিক পরিমাণ গাছপালা লাগানো উচিত।