আজ রবিবার 5:27 pm09 August 2020    ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭    19 ذو الحجة 1441
For bangla
Total Bangla Logo

সাক্ষাৎকারে জাপা প্রেসিডিয়াম মেম্বার আলমগীর সিকদার লোটন

এরশাদের কবর বনানীতে, জিএম কাদের যোগ্য ইমাম

সালমান ফিদা, ঢাকা

টোটালবাংলা২৪.কম

প্রকাশিত : ০৭:৩৮ পিএম, ১০ জুলাই ২০১৯ বুধবার

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম মেম্বার আলমগীর সিকদার লোটন

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম মেম্বার আলমগীর সিকদার লোটন

সাবেক প্রেসিডেন্ট ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ-এর কবর হবে বনানীতে। এটাই চূড়ান্ত। তবে এখনো রংপুরের মানুষ চাচ্ছেন, যেকোনো মূল্যেই হোক, তাদের প্রিয় নেতার কবর হতে হবে রংপুরে। রংপুরের মানুষ এরশাদকে ভালোবাসে। তারাই পাঁচটি আসনে বিপুল ভোটে বিজয়ী করে এরশাদকে ফাঁসি থেকে বাঁচিয়েছিলেন। এরশাদের জন্য রংপুরের মানুষের ভালোবাসার কোনো তুলনা হয় না। তাই তারা তাদের প্রিয় নেতাকে রংপুরে সমাহিত করতে চাচ্ছেন। জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম মেম্বার ও জাতীয় যুবসংহতির সভাপতি আলমগীর সিকদার লোটন টোটালবাংলাটুয়েন্টিফোরডটকম-কে দেওয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে বুধবার দুপুরে একথা বলেছেন। 


বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে বুধবার (১০ জুলাই ২০১৯) দুপুরে জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ-এর ছোটভাই জিএম কাদের সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এতে তিনি এরশাদের শারীরিক অবস্থার সর্বশেষ তথ্য ও পরিস্থিতি তুলে ধরে বলেছেন, এরশাদের অবস্থা আশঙ্কামুক্ত নয়। তাঁকে ওষুধ দিয়ে এবং কৃত্রিমভাবে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে। আমরা দেশবাসীর কাছে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সুস্থতার জন্য দোয়া করতে আহ্বান জানাচ্ছি। তিনি এ কথাও বলেছেন, বিদেশে নিয়ে এরশাদকে চিকিৎসা দিলে তাতে কোনো সুফল আসবে না। বিদেশি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের মন্তব্য এমনই। দেশের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা সর্বোচ্চ আন্তরিকতা দিয়েই চিকিৎসা করছেন। সর্বাধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতিতেই সিএমএইচে তাঁর চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। কোথাও কোনো গাফলতি বা ত্রুটি হচ্ছে না।


সংবাদ সম্মেলন শেষে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানী অফিসে বসেই দলটির প্রেসিডিয়াম মেম্বার ও জাতীয় যুবসংহতির সভাপতি আলমগীর সিকদার লোটন টোটালবাংলাটুয়েন্টিফোরডটকম-কে বিশেষ সাক্ষাৎকার দেন। এতে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কথা ছিল এরশাদকে গিয়ে দেখার। কিন্তু এখনো সেটি হয়নি। এ বিষয়ে আমি বলবো, যে যতটুকু করবে, জনগণ তাকে ততটুকুই আনসার দিবে।


জনাব লোটন বলেন, পল্লীবন্ধু সিএমএইচে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে এখনো বেঁচে আছেন। আমরা তাঁর সুস্থতার জন্য দোয়া করছি। অন্য কোনোও হসপিটাল হলে আরও আগেই তাঁকে মৃত ঘোষণা করে দিত। সিএমএইচে স্যারকে সর্বাধুনিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। 


জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জিএম কাদের পরিচ্ছন্ন এবং মেধাবী পলিটিশিয়ান। তাঁর এই ইমেজ শুধু জাতীয় পার্টি নয়, অন্য দলগুলোর মধ্যেও আছে। জিএম কাদের যোগ্য ইমাম। তিনি পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হওয়ার পর দলে শুদ্ধি অভিযান চলছে। দেখি, এ অভিযান কতটুকু সফল হয়। ব্যর্থ হওয়ার আশঙ্কা থাকবেই-কিন্তু আমরা আশঙ্কা করি না। জিএম কাদের যোগ্য ইমাম। তাঁর নেতৃত্বে জাতীয় পার্টি আগামীতে ক্ষমতায় যাবে, ইনশাআল্লাহ।


জনাব লোটন বলেন, আমরা ক্ষমতাকেন্দ্রিক রাজনীতি করি। বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ-বিএনপির কারোরই ভবিষ্যতে এককভাবে ক্ষমতায় যাওয়ার মতো কোনো অবস্থা নেই। কোয়ালিশন লাগবেই। এক্ষেত্রে জাতীয় পার্টি এখনই ফ্যাক্টর। আগামী নির্বাচনে আরও বড় ফ্যাক্টর হয়ে ওঠবে। তবে জাতীয় পার্টি মুক্তিযুদ্ধেও চেতনায় বিশ্বাসী দল। আওয়ামী লীগের সঙ্গে এ দিক থেকে আমাদের মিল বেশি। অতীতে জাতীয় পার্টির মই দিয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গিয়েছে। এখনো আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় টিকে আছে জাতীয় পার্টিকে সঙ্গে নিয়েই। জাতীয় পার্টি আওয়ামী লীগকে অনেক কিছু দিয়েছে। সে হিসেবে আওয়ামী লীগ থেকে জাতীয় পার্টি উল্লেখ করার মতো কিছুই পায় নি। 


যুবসংহতির সভাপতি লোটন বলেন, বিএনপি যেভাবে জামায়াতে ইসলামীকে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছে, এর সিকি ভাগও আওয়ামী লীগ থেকে জাতীয় পার্টি পায়নি। বিএনপি এবং জাতীয় পার্টি বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের রাজনীতি করে। এদিক বিবেচনায় বিএনপি এবং জাতীয় পার্টি দুটিই বাঘ। এক বনে যেমন দুটি বাঘ থাকতে পারে না, তেমনি বিএনপির সঙ্গে জাতীয় পার্টির কোয়ালিশনের সম্ভাবনাও কম। তবে রাজনীতিতে যেহেতু শেষ কথা বলে কিছু নেই, অতএব এ সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যাবে না যে, ভবিষ্যতে বিএনপির সঙ্গে জাতীয় পার্টির জোট হয়েছে।


জনাব লোটন বলেন, জাতীয় পার্টিকে নিয়ে ষড়যন্ত্র বেশি হয়। এরপরও জাতীয় পার্টি আছে। গত নির্বাচনে দলের নমিনেশনকে কেন্দ্র করে স্যার পার্টির মহাসচিবকে বরখাস্ত করলেন। জনাব রুহুল আমিন হাওলাদার চৌদ্দ বছরের মহাসচিব। তাঁর সাংগঠনিক যোগ্যতা প্রশংসনীয়। এরপরও স্যার এমন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছিলেন। নতুন মহাসচিব দলে দায়িত্ব পেয়েছেন। জনাব মশিউর রহমান রাঙ্গা সাহেবকে নিয়ে মন্তব্য করার মতো সময় হয়নি। তাঁকে কাজ করতে দিতে হবে। তিনি কাজ করুন। মন্তব্য পরে। 


সাবেক প্রেসিডেন্ট পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ-এর একান্ত স্নেহভাজন জনাব আলমগীর সিকদার লোটন গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে এরশাদের লেখা কবিতার বই ‘হে আমার দেশ’ নিজের প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ‘আকাশ’ থেকে বের করেছেন। মিস্টার লোটন এরশাদ-এর শারীরিক সুস্থতার জন্য দেশের সকল স্তরের সব মানুষের কাছে দোয়া চেয়েছেন। #

রাজনীতি-এর সর্বশেষ খবর