আজ বৃহস্পতিবার 10:05 pm21 September 2017    ৬ আশ্বিন ১৪২৪    29 ذو الحجة 1438
For bangla
Beta Total Bangla Logo

ইসলামিক মাইক্রোফাইন্যান্স কর্মসূচি সম্প্রসারণে নীতি তৈরি জরুরি

নিজস্ব সাংবাদিক, ঢাকা

টোটালবাংলা২৪.কম

প্রকাশিত : ০৪:৪৫ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ রবিবার

সেমিনারে বক্তব্য দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞ আলোচকগণ

সেমিনারে বক্তব্য দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞ আলোচকগণ

বাংলাদেশের দরিদ্র ও অসহায় মানুষের টেকসই উন্নয়নে ইসলামিক মাইক্রো ফাইন্যান্স ও শরী‘আহ ব্যাংকিং ব্যবস্থা কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে। শনিবার (১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭) ঢাকায় ডেইলি স্টার ভবনের এএস মাহমুদ মিলনায়তনে ‘এক্সপ্যান্ডিং ফিনান্সিয়াল ইনক্লুশান ইন বাংলাদেশ থ্রু ইসলামিক মাইক্রো ফাইন্যান্স : রোল অব ইসলামিক ব্যাংকস, এনজিও এন্ড মাইক্রো ফাইন্যান্স ইনস্টিটিউটস’ (Expanding Financial Inclusion in Bangladesh through Islamic Microfinance: Role of Islamic Banks and NGOs/ MFIs) শীর্ষক এক জাতীয় সেমিনারে বক্তাগণ এসব কথা বলেন। তারা বলেন, ইসলামিক ব্যাংকিং ও ইসলামিক মাইক্রোফাইন্যান্স কর্মসূচির সম্প্রসারণে একটি নীতিমালা প্রণয়ন সময়ের জরুরি দাবি।

 

যুক্তরাজ্যভিক্তিক আন্তর্জাতিক উন্নয়নসংস্থা ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশ ও সেন্ট্রাল শরীয়াহ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস অব বাংলাদেশ-এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এই সেমিনারে সভাপতি ছিলেন সেন্ট্রাল শরীয়াহ বোর্ড-এর নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান এম. আযীযুল হক। স্বাগত বক্তব্য দেন সেন্ট্রাল শরীয়াহ বোর্ডের সেক্রেটারি জেনারেল একিউএম ছফিউল্লাহ আরিফ ও ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশ-এর কান্টৃ ডিরেক্টর শাবেল ফিরুজ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যাংক এশিয়া লিমিটেডের নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান রূমি এ হোসেন এবং ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড ও এক্সিম ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মু. ফরিদ উদ্দীন আহমেদ।

সেমিনারে বাংলাদেশে ইসলামিক মাইক্রোফাইন্যান্স-এর দ্রুত সম্প্রসারণ, বেসরকারি ব্যাংকিং খাতকে উৎসাহ প্রদান এবং স্থানীয় এনজিও এবং মাইক্রো ফাইন্যান্স প্রতিষ্ঠানসমূহের দক্ষতা উন্নয়নবিষয়ক একটি গবেষণাপত্র উপস্থাপন করেন ঢাকা ইউনিভারসিটির অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ তৌফিকুল ইসলাম। ইসলামিক মাইক্রোফাইন্যান্স ওয়ার্কিং গ্রুপের কার্যক্রম উপস্থাপন করেন ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশের প্রকল্প ব্যবস্থাপক এনামুল হক সরকার।

 

মিস্টার শাবেল ফিরুজ বলেন, ইসলামিক ব্যাংকিং ও ইসলামিক মাইক্রোফাইন্যান্স কর্মসূচির সম্প্রসারণে একটি নীতিমালা প্রণয়ন সময়ের দাবি। তিনি আরও বলেন, ইসলামিক মাইক্রোফাইন্যান্সের কার্যক্রম যত সম্প্রসারণ হবে, দারিদ্র্যের হার তত কমবে। ইসলামিক মাইক্রোফাইন্যান্স ন্যায্য এবং সামাজিক ন্যায়সঙ্গত। এটি সম্প্রসারণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন এবং এ ক্ষেত্রে প্রযুক্তির ব্যবহার অনস্বীকার্য।

 

একিউএম ছফিউল্লাহ আরিফ বলেন, ইসলাম উৎপাদনমুখী শিল্প স্থাপন ও নতুন নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টিকে উৎসাহিত করে এবং সাধারণ মানুষের চাহিদাকে অগ্রাধিকার দিয়ে সকল এলাকার সুষম উন্নয়নে সমবেত অংশগ্রহণ ইসলামের নীতি ও কৌশলের অংশ। এ ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলো এগিয়ে আসতে পারে। তিনি আরও বলেন, সুদের বেষ্টনী থেকে বের হতে না পারলে ব্যাপক উন্নয়ন সম্ভব নয়।

রূমি এ হোসেন বলেন, মাইক্রো ফাইন্যান্স ছাড়া ফাইনান্সিয়াল ইনক্লুশন সম্ভব নয়। তাই দান দিয়ে নয়, মাইক্রোফাইন্যান্স পদ্ধতির মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরিকরণে এগিয়ে আসতে হবে। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকেও যত দ্রুত এই কার্যক্রমের আওতায় আনা যাবে তত দ্রুত দারিদ্র্য দূর করা সম্ভব হবে।

এম. আযীযুল হক বলেন, পৃথিবীর প্রায় সকল দেশেই ইসলামিক ব্যাংকিং ব্যবস্থা রয়েছে। ইসলামিক ব্যাংকিং ছাড়া সবার জন্য ইনক্লুসিভ এবং দরিদ্রবান্ধব ব্যাংকিং সম্ভব নয়। তিনি সুদবিহীন ফাইন্যান্সব্যবস্থা চালু করতে গুরুত্ব তুলে ধরেন।


সেমিনারে আলোচকগণ ইসলামিক মাইক্রোফাইন্যান্স এবং ব্যাংকিং নীতিমালাবিষয়ক কিছু পরামর্শ, ভবিষ্যত কর্মপন্থা, দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য গতানুগতিক ক্ষুদ্রঋণের পাশাপাশি ইসলামিক মাইক্রোফাইন্যান্সের পরিধি সম্প্রাসারণ এবং ইসলামিক ব্যাংকিং ও মাইক্রোফাইন্যান্স ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিবর্গের দক্ষতা বাড়ানোসহ বেশকিছু সুপারিশ প্রণয়ন করেন।

সেমিনারে বিভিন্ন ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি সংস্থা এবং মাইক্রোফাইন্যান্স কার্যক্রম পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানের ১০০জন প্রতিনিধি অংশ নেন।-প্রেস রিলিজ

 

আরও পড়ুন :

 

# অমুসলিমদের জন্য খুলে দেওয়া হলো যুক্তরাজ্যের দেড়শ মসজিদ

 

# The Super Bowl offers a window into American culture