আজ সোমবার 10:39 am06 July 2020    ২১ আষাঢ় ১৪২৭    15 ذو القعدة 1441
For bangla
Total Bangla Logo

ইচ্ছা থাকলেই এনজিওতে চাকরি!

অনিল সেন

আলজাজিরাবাংলা.কম

প্রকাশিত : ০৩:৫৬ পিএম, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ শুক্রবার | আপডেট: ০১:৫৩ পিএম, ১৬ অক্টোবর ২০১৬ রবিবার

ইচ্ছা থাকলেই এনজিওতে চাকরি!

ইচ্ছা থাকলেই এনজিওতে চাকরি!



আর এই জানার অভাবেই এসব চাকরি অনেকটা হাতছাড়াই হয়ে যাচ্ছে। আমাদের আজকের ক্যারিয়ারের এসবের বিস্তারিত থাকছে। লিখেছেন রবি হাসান

ধরন এবং উদ্দেশ্য

আগেই জানতে হবে প্রতিষ্ঠানটির ধরন কী, এর কাজ কী এবং এর উদ্দেশ্য কী। এনজিওগুলো সাধারণত পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর ভাগ্য উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করে। মানুষের মৌলিক অধিকার যেমন—খাদ্য, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিত্সা প্রভৃতি। তেমনি ক্ষুদ্র জাতি গোষ্ঠীর উন্নয়ন, পরিবেশ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, জলবায়ু পরিবর্তন, উন্নয়ন কর্মসূচি, ক্ষুদ্রঋণ, এইডস, যক্ষা, ম্যালেরিয়াসহ বিভিন্ন রোগ-ব্যাধি ও বিভিন্ন গবেষণা পরিচালনার জন্য কাজ করে। অনেক এনজিওর কাজ বিশেষ এলাকাভিত্তিক হয়ে থাকে। কিছু এনজিও বিশেষ জনগোষ্ঠীকে নিয়ে কাজ করে। যেমন-প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠী, পথশিশু, শ্রমজীবী শিশু, নির্যাতিতা নারী।

 

কোথায় কেমন সুযোগ

এনজিওগুলোতে বিভিন্ন বিভাগে কাজের সুযোগ রয়েছে। যেমন—গবেষণা, উন্নয়ন, প্রোগ্রাম, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও পুষ্টি বিভাগ, মানবসম্পদ উন্নয়ন ও হিসাবরক্ষণ বিভাগ। এসব প্রতিষ্ঠানে নারী-পুরুষ সবাই সমান সুযোগ পেয়ে থাকে। তবে মাঠপর্যায়ে নারীদের সঙ্গে কাজ করার জন্য সাধারণত নারীকর্মী নিয়োগ দেওয়া হয়। প্রতিবছর এসব প্রতিষ্ঠানে মাঠপর্যায়ে ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অনেক কর্মী নিয়োগ দেওয়া হয়।

 

কোন পদে কী যোগ্যতা

অ্যাকশনএইডের মানবসম্পদ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পল্লব কুমার বসাদ জানান, মাঠপর্যায়ে কাজের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি বা এইচএসসি পাস হলেই হয়। মাঝারি স্তরের কর্মকর্তা পদে চাওয়া হয় স্নাতক বা স্নাতকোত্তর, থাকতে হয় অভিজ্ঞতা। অনেক এনজিওতে ইংরেজি ও তথ্যপ্রযুক্তি দক্ষতা চাওয়া হয়। অনেক এনজিওর কার্যক্রম আছে বিদেশেও। ভালো ইংরেজি জানা থাকলে সেখানে পাঠানো হতে পারে। কম্পিউটারে দক্ষতার ক্ষেত্রে প্রয়োজন এমএস ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্ট। এ ছাড়া ইন্টারনেট ব্যবহারটাও জানতে হয়।

 

বিষয় কোনো বিষয় নয়!

কী বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করেছেন, এ চিন্তাটা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন। যেকোনো বিষয়ে পড়ে এনজিওতে কাজ করা যায়, তবে দরকার পরিবেশের সঙ্গে খাপখাইয়ে নেওয়ার মানসিকতা। তবে কাজের ধরন অনুযায়ী সমাজকল্যাণ, সমাজবিজ্ঞান, নৃবিজ্ঞান, লোকপ্রশাসন, উন্নয়ন অধ্যয়নসহ সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অন্তর্ভুক্ত বিষয়গুলো প্রাধান্য পেয়ে থাকে। গবেষণার ক্ষেত্রে প্রাধান্য পায় গণিত ও পরিসংখ্যান। জলবায়ু পরিবর্তনের গবেষণার জন্য ভূগোল, পরিবেশবিদ্যা, ভূতত্ত্বের চাহিদা বেশি। কৃষি গবেষণার জন্য কৃষি বিষয়ে ডিগ্রিধারীদের বেশি সুযোগ। বিবিএ, এমবিএ ডিগ্রিধারীদের কাজের ক্ষেত্র হিসাব বিভাগে এবং ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম।

 

অভিজ্ঞতা যখন বাধা

অভিজ্ঞতা একটি বড় বিষয়। মূলত অভিজ্ঞতার আলোকেই অধিকাংশ নিয়োগ হয়ে থাকে। অভিজ্ঞতার জন্য বিভিন্ন এনজিওতে ইন্টার্নশিপ করা যায়। ইন্টার্নশিপের সুযোগ আছে ব্র্যাক, অ্যাকশনএইড, আশা, মুসলিমএইড, কেয়ারসহ অনেক প্রতিষ্ঠানে। বিনাবেতনে কাজ করার বিনিময়ে অভিজ্ঞতার সনদ দেয় অনেক এনজিও। বিভিন্ন জব সাইট ও ট্রেনিং ইনস্টিটিউট স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের আয়োজন করে। ছাত্রাবস্থায় স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে সেটিও বাড়তি যোগ্যতা হিসেবে ধরা হয়।

 

নিয়োগ প্রক্রিয়া

এনজিওগুলো জবসাইট ও দৈনিক পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে থাকে। প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটেও প্রকাশ করা হয় বিজ্ঞপ্তি। সরাসরি, মেইল বা ডাকযোগে সিভি পাঠাতে হয় প্রতিষ্ঠানের মানবসম্পদ বিভাগ বরাবর। বিজ্ঞপ্তি না থাকলেও নিজ উদ্যোগে সিভি জমা দিতে পারেন। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে কর্মী বাছাই করা হয়। এ ছাড়া বিভিন্ন সময় যারা সিভি জমা দেন, তাদের মধ্যে থেকেও নিয়োগ দেওয়া হয়।

 

সুযোগ-সুবিধাসমূহ

দেশীয় এনজিওগুলোতে এন্ট্রি লেভেলের কর্মীদের বেতন ৮ থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। বাড়ি ভাড়া, যাতায়াত খরচ, উত্সব ভাতা, মাতৃত্বকালীন ছুটি ও বীমা সুবিধা পান কর্মীরা। শুরুতে বেতন কম থাকলেও পরবর্তীকালে পদোন্নতির সাথে সাথে বাড়তে থাকে বেতন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা। বেশিরভাগ এনজিওতে সময়ভিত্তিক না হয়ে পদোন্নতি দেওয়া হয় পারফর্ম্যান্সভিত্তিক। তাই সারা বছর ধরে চলে কর্মীদের কর্মদক্ষতার মূল্যায়ন। তবে ওই প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ও নির্দিষ্ট নীতিমালার ওপর বেতনকাঠামো নির্ভর করে। দক্ষতার সঙ্গে ৩-৪ বছর কাজ করতে পারলে আন্তর্জাতিক বা শীর্ষস্থানীয় জাতীয় সংস্থাগুলোতে ভালো বেতনে চাকরি পাওয়া যায়। আন্তর্জাতিক এনজিওগুলোতে অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার পাশাপাশি ৮০ হাজার থেকে ২ লাখ টাকা পর্যন্ত বেতন হতে পারে।