আজ শনিবার 6:17 pm08 August 2020    ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭    18 ذو الحجة 1441
For bangla
Total Bangla Logo

চিন্তিত নন খোকা ‌‌

আপিলেই বেকসুর খালাসের আশা

আনিকা ফারজানা

আলজাজিরাবাংলা.কম

প্রকাশিত : ০৮:১৩ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬ শুক্রবার

সাদেক হোসেন খোকা

সাদেক হোসেন খোকা

আপিল হলে ‘রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে` দায়ের করা দুদকের এ মামলার কিছুই থাকবে না বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকার আইনজীবী মো. মোহসিন মিয়া।

মোহসিন মিয়া বলেন, উচ্চ আদালতের অনুমতি নিয়েই চিকিৎসার জন্য সাদেক হোসেন খোকা বিদেশ গিয়েছেন। তিনি সুস্থ হয়ে দেশে ফিরলেই দুদকের দায়ের করা মামলার রায়ের বিরুদ্ধে তারা আপিল করবেন।

সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার জমি ও বাড়িতে সরকারি সম্পত্তি হিসেবে জেলা প্রশাসনের নোটিশ টানানোর বিষয়ে জানতে চাইলে মোহসিন মিয়া বলেন, ‘প্রশাসন আদালতের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করছে। সেক্ষেত্রে বলার কিছু নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘গুলশানের প্লটটি তিনি ‘ক্ষতিগ্রস্ত’ হিসেবে পেয়েছেন। কারণ সায়েদাবাদে রাস্তা ও ফ্লাইওভার করার জন্য তার সাত কাঠা জমির ওপর একটি তিনতলা বাড়ি অধিগ্রহণ করা হয়েছিল। সেটার ক্ষতিপূরণ হিসেবেই গুলশানে ৫ কাঠার প্লটটি তাকে ‘ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি’ হিসেবে দেওয়া হয়েছিল। পরে তিনি ব্যাংক থেকে এক কোটি ২৫ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে সেখানে ভবন নির্মাণ করেন।’

অ্যাডভোকেট মোহসিন মিয়া বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সাদেক হোসেন খোকার কাছে স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তির হিসাব চেয়েছিল। তিনি তার সম্পূর্ণ হিসাব দিয়েছেন। কোনও তথ্য গোপন করেননি। কিন্তু জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের অভিযোগে দুদক তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে—যা সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

বৃহষ্পতিবারও খোকার সঙ্গে কথা হয়েছে জানিয়ে অ্যাডভোকেট মোহসিন মিয়া বলেন, ‘আমি সাদেক হোসেন খোকার সঙ্গে কথা বলেছি। উনি বলেছেন, উনার শারীরিক অবস্থা বেশ খানিকটা উন্নতির পথে। পুরোপুরি সুস্থ হয়ে দেশে আসলেই তিনি আপিল করবেন। এটা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা। আমি সঠিক ও সম্পূর্ণ হিসাব দিয়েছি। কোনও তথ্য গোপন করিনি।’ আপিল হলে এ মামলার কিছুই থাকবে না এবং বেকসুর খালাস পাবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

অ্যাডভোকেট মোহসিন মিয়া আরও বলেন, ‘এটা ঠিক আদালত যেভাবে রায় দিয়েছে জেলা প্রশাসন সেভাবেই যাচ্ছে। কিন্তু আদালত থেকে আমরা ন্যায় বিচার পাইনি। সাদেক হোসেন খোকা দেশে ফিরলেই এ মামলার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে। আপিল হলে এ মামলার কিছুই থাকবে না। বেকসুর খালাস পেয়ে যাবেন তিনি।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে গুলশান-২ এর ৭২ নম্বর সড়কের ৯ নম্বর হোল্ডিংয়ের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, ঢাকা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রের অনুকূলে টানানো নোটিশটি ঝুলছে। সেখানে গিয়ে কোনও কেয়ারটেকারকে পাওয়া যায়নি। নিরাপত্তারক্ষী রাজীব জানান, বুধবার বিকালে প্রশাসনের লোকজন গিয়ে নোটিশ টানিয়ে দিয়েছে। বাড়ির ভাড়াটিয়ারা একমাস থাকতে পারবেন বলে প্রশাসনের লোকজন জানিয়েছেন। প্রশাসনের টানানো নোটিশে ‘সরকারি সম্পত্তি’ উল্লেখ করে বলা হয়েছে, ‘মাননীয় বিশেষ জজ আদালত-০৩ ঢাকা-এর বিশেষ মামলা নম্বর ০২/২০১৫ মোকদ্দমায় বিগত ২০-১০-২০১৫ তারিখে প্রদত্ত রায় মোতাবেক রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্তকৃত সরকারি সম্পত্তি। তফসিল পরিচয়, বাড়ি নং-০৯, রোড নং-৭২, গুলশান আ/এ, ঢাকা। জমির পরিমাণ= ০.০৮২৫ একর।’

অন্যদিকে, সাদের হোসেন খোকার মালিকানাধীন মেসার্স বুড়িগঙ্গা ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের নামে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে থাকা প্রায় ৮৮ একর জমি আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী বাজেয়াপ্ত করার প্রক্রিয়া চলছে বলে বাংলা ট্রিবিউনকে জানান গাজীপুর জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (জেনারেল) মাহমুদ হোসেন। আদালতের নির্দেশ পালন ছাড়া জেলা প্রশাসন নিজ উদ্যোগে কিছু করছে না বলে জানান তিনি।

অন্যদিকে, নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফারহানা ইসলাম জানান, দুদকের একটি মামলায় বিশেষ জজ আদালতের নির্দেশে সাদেক হোসেন খোকার আয়ত্তে থাকা ৫০ দশমিক ৮৯ একর জমি বাজেয়াপ্ত করে বৃহষ্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) লাল পতাকা টানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এসব জমি খাস খতিয়ানভুক্ত করারও প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বিগত তত্ত্ববধায়ক সরকারের সময় ২০০৮ সালের ২ এপ্রিল ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা, তার স্ত্রী ইসমত আরা এবং ছেলে ইশরাক হোসেন ও মেয়ে সারিকা সাদেককে আসামি করে রমনা থানায় মামলা দায়ের করে দুদক। একই বছরের জুলাই মাসে তার ছেলে ও মেয়ের নাম বাদ দিয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও দুদকের উপ-পরিচালক মো. সামছুল আলম আদালতে অভিযোগপত্র দেন। দীর্ঘদিন বিচার প্রক্রিয়া শেষে গত বছরের ২০ অক্টোবর অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপন করার অভিযোগে পলাতক দেখিয়ে খোকাকে ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। একইসঙ্গে অবৈধভাবে ১০ কোটি ৫ লাখ ২১ হাজার ৮৩২ টাকার সম্পদের মালিক হয়েছেন ঘোষণা করে ওই সম্পদ রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন আদালত।

বর্তমানে সাদেক হোসেন খোকা চিকিৎসার জন্য আমেরিকায় অবস্থান করছেন।

রাজনীতি-এর সর্বশেষ খবর